জেনে নিন অদ্ভুত কিছু চাকরির কথা

জেনে নিন অদ্ভুত কিছু চাকরির কথা

অনলাইন খবর ডটকমঃ


 

বেতন দিলে যেকোনো কাজেই চাকরিপ্রার্থী পেয়ে যাবেন আপনি। কুকুরকে হাঁটানো, ঘর গোছানো থেকে শুরু করে একাকিত্বের সঙ্গী-সঙ্গিনী হওয়ার কাজটিও চাকরি হিসেবে দিব্যি টিকে রয়েছে। এসব কাজে চাকরিপ্রার্থীদেরও অভাব নেই। এখানে দেখে নিন, অদ্ভুত কিছু চাকরির কথা।

১. মারাত্মক সব বিষাক্ত সাপের বিষ প্রয়োজন হয় অ্যান্টিভেনমসহ বিভিন্ন ওষুধ প্রস্তুতে। ‘স্নেক মিলকার’দের কাজ হলো, র‍্যাটল স্নেক বা কোবরার মতো ভয়ংকর সব সাপের বিষ বের করে এরা।

২. বিয়ের দিনে কনের চারপাশে থেকে তাকে সাহায্য করার জন্যে পেশাদার ব্রাইডমেইডরা রয়েছেন। এদের সরবরাহ করতে প্রতিষ্ঠানও রয়েছে। আমেরিকার যেকোনো স্থানে প্রতি বিয়েতে এদের চার্জ ৩০০-২০০০ ডলার।

৩. ১৯১২ সালে টাইটানিক ডুবে যাওয়ার পর হিমবাহ সরানোর কাজ পেশা হয়ে ওঠে। দ্য ইন্টারন্যাশনাল আইস প্যাট্রল (আইআইপি) প্রতিষ্ঠিত হয় এক বছর পরই। ইউএস কোস্ট গার্ড এটা নিয়ন্ত্রণ করে। এদের কাজ সমুদ্রের তলদেশ বা জাহাজ চলার পথের বরফ খণ্ড সরিয়ে চলাচলকে নিরাপদ করা।

৪. ইংল্যান্ডের একটি প্রতিষ্ঠান রেন্ট আ মোরনার। এরা মৃতের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় শোক পালন করতে মানুষ ভাড়া দেয়। দুই ঘণ্টার জন্যে শোক পালনের কাজে ৭০ ডলার করে নেয় তারা।

৫. বেশ কিছু সমুদ্রসৈকতে কুকুরকে সার্ফিংয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। বহু সৌখিন মানুষ তার আদরের কুকুরটিকে সার্ফার হিসেবে দেখতে চান।

৬. এদের বলা হয় ‘ফেস ফিলার’। এরা যেকোনো প্রসাধন, যেমন লোশন বা ফেসিয়াল ক্লিনজার ইত্যাদি হাতে নিয়ে তার গুণাগুণ যাচাই করেন। প্রতিঘণ্টায় তারা ২৫ ডলার উপার্জন করতে পারেন।

৭. একাকী পুরুষ সঙ্গিনীকে জড়িয়ে ধরে কিছু সময় কাটাতে চান। এই সঙ্গিনী মিলবে ঘণ্টায় ৮০ ডলারের বিনিময়ে। পোর্টল্যান্ডের সামান্থা হেস এমনই একজন পেশাদার ‘কাডলার’।

৮. মৃতের দেহ পোড়নোর পর তা ছাই হয়ে যায়। প্রিয়জনের স্মৃতি ধরে রাখতে চান অনেকেই। এ কাজে আছেন পেশাদার চিত্রশিল্পী যারা ছাই দিয়ে দারুণ চিত্রকর্ম সৃষ্টি করেন।

৯. যে সব প্রতিষ্ঠান মুখের দুর্গন্ধ দূরীকরণে গাম, মিন্ট, টুথপেস্ট বা মাউথওয়াশ প্রস্তুত করে, তাদের প্রয়োজন হয় কিছু পেশাদার মানুষের। এরা মুখের দুর্গন্ধ কতটা দূর হচ্ছে তা পরীক্ষা করে দেখেন।

১০. কুকুরের বিভিন্ন ধরনের খাবার প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান তাদের খাবারের গুণগতমান পরীক্ষা করেন এক্সপার্ট দিয়ে। এ কাজে আছেন পেশাদাররা যারা কুকুরের খাবার খেয়ে তার মূল্যায়ন করেন।

১১. বড় বড় মুরগির খামারে মোরগ-মুরগির যৌন মিলন নিশ্চিত করতে রয়েছেন বিশেষজ্ঞ ‘চিকেন সেক্সার’। সাধারণত ব্রিটেন ও জাপানে এদের দেখা মেলে। বছরে এরা ৬০ হাজার ডলার পর্যন্ত উপার্জন করেন।

১২. নতুন আইফোন বের হয়েছে তো বিক্রেতার দোকানের সামনে দীর্ঘ লাইন। এমন বহু জনপ্রিয় পণ্য কিনতে প্রায়ই ক্রেতাদের দারুণ ভিড় দেখা যায়। লক্ষণীয় ভিড় সৃষ্টি করতে লাইনে দাঁড়ানোর জন্যে আছেন পেশাদার ‘লাইন-স্ট্যান্ডার’রা। এরা সপ্তাহে ১ হাজার ডলার পর্যন্ত উপার্জন করেন।

১৩. ফরচুন কুকি বেশ জনপ্রিয় একটি খাবার। এই কুকির ভেতরে ভাগ্য নিয়ে মজার মজার কথা লেখা থাকে। এসব লেখার কাজে পেশাদারের প্রয়োজন। এরা বছরে ৪০ হাজার ডলার পর্যন্ত আয় করতে পারেন।
সূত্র : বিজনেস ইনসাইডার

Comments

comments